09/04/2018

নারীর স্তনবৃন্ত সম্পর্কে ৮ অজানা তথ্য, যা হয়তো চিন্তাও করেননি

তনের আকার ও আয়তন এক এক শরীরে একেক রকম হয়। ঠিক তেমনই স্তনবৃন্তও বিভিন্ন ধরনের হয়। অনেক সময় এই স্তনবৃন্ত দেখেই বোঝা যায় নারী-শরীরে ক্যানসার বা অন্য কোনও রোগ বাসা বেঁধেছে কি না।

স্তনবৃন্ত বলতে যা বোঝায় তার দু’টি অংশ রয়েছে, এরিওলা এবং নিপলস। নিপলস বা স্তনবৃন্ত সব নারী-শরীরে একই রকম হয় না। নীচে রইল স্তনবৃন্ত সম্পর্কে ৮টি তথ্য যা হয়তো জানতেন না—

১) কেশজ : স্তনবৃন্তের আশপাশে ছোট ছোট রোম বা কেশ থাকা খুবই কমন প্রাপ্তবয়স্ক মহিলাদের মধ্যে। তবে যাঁদের পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম রয়েছে তাঁদের স্তনবৃন্তে কেশ থাকে বেশি।

২) তৃতীয় বৃন্ত : বিশ্বাস না হলেও সত্যি। নারী শরীরে অনেক সময়েই থার্ড নিপল বা তৃতীয় বৃন্ত দেখা যায়। তবে এই তৃতীয় বৃন্তটি সব সময় বুকেই না-ও থাকতে পারে। অনেক সময়েই এই তৃতীয় বৃন্তটি মুখে অথবা শরীরের অন্য অংশেও দেখা যায়। এটি অত্যন্ত বিরল ঘটনা তবে ঠিক কী কারণে এটি হয় তা এখনও জানা যায়নি।

৩) বাম্পস : স্তনবৃন্তের উপরে ছোট ছোট বাম্পস থাকে যা একেবারেই স্বাভাবিক। এগুলি হল মন্টগোমারি গ্ল্যান্ডস। এই গ্ল্যান্ড থেকেই এক ধরনের তেল নিঃসৃত হয় যা স্তনবৃন্তকে নরম রাখে।

৪) ইনভার্টেড : স্তনবৃন্তে স্পর্শ করলে তা জেগে ওঠে কারণ বেশিরভাগ নারী-শরীরে স্তনবৃন্ত বহির্মুখী। কিন্তু অনেকের শরীরেই তা অন্তর্মুখী। যাঁদের অন্তর্মুখী স্তনবৃন্ত থাকে তাঁদের স্তন্যদান করতে সমস্যা হয়। নিয়মিত ব্রেস্ট মাসাজ করলে এই সমস্যা দূর হতে পারে।

৫) দীর্ঘ : অনেক নারী-শরীরেই স্তনবৃন্ত স্বাভাবিকের থেকে বেশি দীর্ঘ হয়। এই ধরনের স্তনবৃন্ত স্তন্যদানের পক্ষে আদর্শ।

৬) বিরাট : অনেক সময়ই অ্যারিওলা অনেকটা ছড়ানো হয়। অ্যারিওলা ব্যাসার্ধে কতটা বড় হবে তা স্তনের আকার-আয়তনের উপর নির্ভর করে না। অনেক সময়ে ছোট স্তনের ক্ষেত্রেও অ্যারিওলা বড় হতে পারে যা একেবারেই স্বাভাবিক।

৭) ছোট : অ্যারিওলা, স্তনবৃন্ত এবং স্তনের আকার-আয়তন কেমন হবে তা অনেকটাই জিনগত। অনেক নারী-শরীরেই স্তনের আকার ছোট হয়। পাশাপাশি অ্যারিওলা এবং নিপলও অপেক্ষাকৃত ছোট হয়। জিনগত কারণ ছাড়াও কিশোরী বয়সে ঠিকমতো পুষ্টির অভাব বা হরমোন নিঃসরণ কম হলেও এমনটা হতে পারে।

৮) স্ফীত : স্তনবৃন্ত উত্তেজিত হলে তা দীর্ঘ হয়। কোনও কোনও নারী-শরীরে দীর্ঘায়ত স্তনবৃন্ত স্বাভাবিকের তুলনায় অনেকটা বেশি স্ফীতও দেখায়। এর পিছনেও জিনগত কারণ রয়েছে এবং এটিও একেবারেই স্বাভাবিক।

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook

Instagram

You Tube

"At the end of Love there is Pure Love"

Pure Love © 2020 | Privacy Policy